1. muktirshongbad@gmail.com : 20dailymuktirshongbadbd.com :
  2. miliakthar868@gmail.com : Editor :
  3. mdkaiumjsc01643@gmail.com : Kaium Hossain :
  4. ramjanbhuiyan84@gmail.com : ramjanbhuiyan :
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:০০ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
বহুল জনপ্রিয় দৈনিক মুক্তির সংবাদ অনলাইন পত্রিকায় সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।  বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়,দৈনিক মুক্তির সংবাদ পত্রিকা সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়, জেলা ব্যুরো প্রধান ও বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানে কাজ আগ্রহী প্রার্থীগণ সিভি পাঠাতে পারেন। ন্যূনতম যোগ্যতা এস এস সি পাশ।চূড়ান্ত নির্বাচন প্রক্রিয়া:রিক্রুটিং টিম কোন প্রকার একাডেমিক পরীক্ষার ফল বিবেচনা করবে না। কর্মঠ, সৎ ও কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুগত প্রার্থীদের বাছাই করা হবে।E-mail :  muktirshongbad@gmail.com যোগাযোগ নাম্বার:01752602939/01710006400 ।সম্পাদক ও প্রকাশক,মোঃ মাসুদ মৃধাঃ 01933609066

আমন ধানে চাষে ব্যাস্ত সময় পার করছে সদরপুরের কৃষকরা। দৈনিক মুক্তির সংবাদ

  • খবর পাবলিসের সময় বৃহস্পতিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২১
  • ৪৫ বার পোস্টটি পড়া হয়েছে

 

 

শিমুল তালুকদার।

বিশেষ প্রতিনিধি।

 

 

চলতি মৌসুমে রোপা আমন ধান চাষে ব্যাস্ত সময় পার করছে ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার কৃষকরা। চলতি মৌসুমে সময় মত বৃস্টি না হওয়ার কারনে জমি থেকে পাট কেটে ওই জমিতে রোপা আমন ধান চাষে একটু বিলম্বিত হয়েছে বলে জানান কৃষকরা। উপজেলার ঢেউখালী গ্রামের কৃষক মজিবর ফকির জানান চলতি মৌসুমে বৃস্টির অভাবে কৃষকরা জমি থেকে পাট কেটে রোপা আমনের জমি তৈরী করতে বিলম্বিত হয়েছে। তবে কিছুদিন বিলম্বিত হলেও রোপা আমন ধানের জমি তৈরী এবং আবাদ করতে ব্যাস্ত সময় পার করছে কৃষকরা। প্রতি বিঘা জমিতে আমন ধান রোপন, সার, বীজ,সার ও পরিচর্যা সহ সব মিলিয়ে মোট খরচ হয় প্রায় বার হাজার টাকা। এবং প্রতি বিঘা জমিতে আমন ধান উৎপাদন হয় পচিশ থেকে আঠাশ মন। যার বাজার মুল্য প্রায় ত্রিশ হাজার টাকা। বি-৭২ ও বি- ৭৫ জাতের আমন ধানের ফলন বেশি হওয়ায় কৃষকরা এই জাতের ধানের আবাদ করতে ঝুকছেন অধিকাংশ কৃষক। অনূকুল আবহাওয়া ও সঠিক পরিচর্যা করলে প্রতি বিঘায় ত্রিশ মন ধান ফলানো সম্ভব বলেও জানান সায়াদ সর্দার নামের অপর কৃষক। স্বপ্ল সময়ে অধিক লাভ হওয়ার কারনে অনেক কৃষকরাই ঝুকছেন রোপা আমন ধান আবাদে।।। আমন ধানের চারার মুল্য বেশি থাকার কারনে অনেক কৃষকরা নিজেরাই বীজ তলা তৈরী করে আমনের চারা উৎপাদন করেছিলেন। কিন্ত ধানের চারা তুলতে কৃষকের খরচ বেশি হওয়ায় ধানের বীজতলায় ধানের চারা তৈরী করার চেয়ে বাজার থেকে ভাল জাতের চারা ক্রয় করতেই তুলনামুলক অনেক কম সাশ্রয়ী বলে মনে করেন স্থানীয় কৃষকরা। আবহাওয়া অনূকুলে থাকলে এবারে সদরপুরে আমনের বাম্পার ফলনের আশা করছেন সদরপুরের কৃষকরা।

 

 

পোস্টটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটেগরির আরও খবর