1. muktirshongbad@gmail.com : 20dailymuktirshongbadbd.com :
  2. mdkaiumjsc01643@gmail.com : Kaium Hossain :
  3. ramjanbhuiyan84@gmail.com : ramjanbhuiyan :
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৫:৫২ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
বহুল জনপ্রিয় দৈনিক মুক্তির সংবাদ অনলাইন পত্রিকায় সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।  বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়,দৈনিক মুক্তির সংবাদ পত্রিকা সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়, জেলা ব্যুরো প্রধান ও বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানে কাজ আগ্রহী প্রার্থীগণ সিভি পাঠাতে পারেন। ন্যূনতম যোগ্যতা এস এস সি পাশ।চূড়ান্ত নির্বাচন প্রক্রিয়া:রিক্রুটিং টিম কোন প্রকার একাডেমিক পরীক্ষার ফল বিবেচনা করবে না। কর্মঠ, সৎ ও কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুগত প্রার্থীদের বাছাই করা হবে।E-mail :  muktirshongbad@gmail.com যোগাযোগ নাম্বার:01752602939/01710006400 ।সম্পাদক ও প্রকাশক,মোঃ মাসুদ মৃধাঃ 01933609066

রাত্রি পোহালেই ভালোবাসা দিবস ভালোবাসা রাজু (দৈনিক মুক্তির সংবাদ)

  • খবর পাবলিসের সময় শনিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৯৮ বার পোস্টটি পড়া হয়েছে

লেখক
রাজু আহমেদ

১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। জেনে কিংবা না জেনে, কখনো বা হুজুগে মেতে আমরা কম বেশি ভালোবাসা দিবস পালন করি। আমার মতে ভালোবাসার জন্য কোনো একক দিবসের দরকার হয় না। ভালোবাসা ছাড়া কি কোনো দিবস-কোনো রজনী পাড়ি দেওয়া সম্ভব? মা-বাবা সন্তানকে-সন্তান মা-বাবাকে, প্রেমিক প্রেমিকাকে-প্রেমিকা প্রেমিককে, স্বামী স্ত্রীকে-স্ত্রী স্বামীকে, সহোদর সহোদরকে, বন্ধু বন্ধুকে, স্বজন স্বজনকে, প্রিয় প্রিয়কে ভালোবাসবে, ভালোবাসবে ক্ষণে ক্ষণে প্রতিক্ষণে-এটাই স্বাভাবিক। তারপরেও মানবজীবনে এই স্বাভাবিকতা স্বাভাবিক থাকে না। তাই ভালোবাসার ছন্দপতন হয়। তবে সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য আকারে, ইঙ্গিতে, নিঃশব্দে কিংবা শব্দমালায় মানবজীবনে ভালোবাসার ছন্দমালা খুবই জরুরি। সংস্কৃতি-ভেদে ভালোবাসা প্রকাশে, ছন্দে ভিন্নতা রয়েছে-তবে ভালোবাসা শূন্য সংস্কৃতি নেই, ভালোবাসা ছাড়া কোনো দিবসও নেই, তাহলে কেন এ একক ভালোবাসা দিবস?

ভালোবাসা দিবসের যাত্রা নিয়ে অনেক তত্ত্ব রয়েছে। একটি তত্ত্ব মতে ভালোবাসা দিবসের জন্ম প্রাচীন রোমান উৎসব ‘লোপারকেলিয়া’-কে কেন্দ্র করে যা ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪ তারিখে উদ্‌যাপন করা হতো। রোমানরা নারী ও বিবাহের দেবতা যোনোর সম্মানে এ উৎসব পালন করত। এ দিনে অবিবাহিত নারীরা চিরকুটে ভালোবাসার নোট লিখে কলসের মতো একটা জারে রাখত যাকে বলা হতো বিলেটস। তারপর অবিবাহিত ছেলেরা সে জার থেকে চিরকুট তুলত। সে চিরকুটে যে মেয়ের নাম থাকত ছেলেটি তার সন্ধানে বের হতো। ছেলেটি ওই নাম তার শার্টে এক সপ্তাহ লিখে রাখত এবং লোকজনকে তার ভালোবাসার মানুষের নাম জানান দিত। কারণ রোমানরা মনে করত নিজের অনুভূতিকে অন্যের কাছে প্রকাশ করতে কোনো লজ্জা নেই।
ভালোবাসা দিবস নিয়ে আরেকটি তত্ত্ব প্রচলিত আছে যা রোমান সম্রাট ক্লডিয়াস-দুই ও ভ্যালেন্টাইন নামক একজন পুরোহিতের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। রোমান সম্রাট ক্লডিয়াস-দুই সকল বিবাহ নিষিদ্ধ করেছেন কারণ তিনি বিশ্বাস করতেন অবিবাহিত পুরুষেরা সৈনিক হিসেবে উত্তম। তার ধারণা মতে সংসার না থাকার কারণে অবিবাহিত পুরুষেরা যুদ্ধে মনোযোগ দিতে পারবে এবং পিছুটান না থাকায় সহজে জীবন উৎসর্গ করতে পারবে। ভ্যালেন্টাইন নামক একজন পুরোহিত সে নিয়ম ভঙ্গ করে গোপনে ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪ তারিখে এক জুটির বিবাহ সম্পন্ন করেছিলেন। আর এ কারণেই ফেব্রুয়ারী।

পোস্টটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটেগরির আরও খবর