1. muktirshongbad@gmail.com : 20dailymuktirshongbadbd.com :
  2. mdkaiumjsc01643@gmail.com : Kaium Hossain :
  3. ramjanbhuiyan84@gmail.com : ramjanbhuiyan :
সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৩:২০ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
বহুল জনপ্রিয় দৈনিক মুক্তির সংবাদ অনলাইন পত্রিকায় সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।  বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়,দৈনিক মুক্তির সংবাদ পত্রিকা সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়, জেলা ব্যুরো প্রধান ও বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানে কাজ আগ্রহী প্রার্থীগণ সিভি পাঠাতে পারেন। ন্যূনতম যোগ্যতা এস এস সি পাশ।চূড়ান্ত নির্বাচন প্রক্রিয়া:রিক্রুটিং টিম কোন প্রকার একাডেমিক পরীক্ষার ফল বিবেচনা করবে না। কর্মঠ, সৎ ও কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুগত প্রার্থীদের বাছাই করা হবে।E-mail :  muktirshongbad@gmail.com যোগাযোগ নাম্বার:01752602939/01710006400 ।সম্পাদক ও প্রকাশক,মোঃ মাসুদ মৃধাঃ 01933609066

নন্দীগ্রাম পুরাতন বাজারে সরকারি জায়গা দখল করে পাকা ঘড় নির্মান

  • খবর পাবলিসের সময় মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৮ বার পোস্টটি পড়া হয়েছে

নন্দীগ্রাম বগুড়া পতিনিধি
বগুড়ার নন্দীগ্রাম পুরাতন বাজারে সরকারি জায়গা দখল করে পাকা ঘড় নির্মান করার অভিযোগ উঠেছে। প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, ২০০৭ সালে সরকারি জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান চলাকালে নন্দীগ্রাম পুরাতন বাজারে সরকারি জায়গায় প্রায় শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে দেয়া হয়। এরপর দোকান মালিক গন দোকান ঘড়ের জায়গা না পেয়ে বেকার হয়ে পরে। তৎকালিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুর রাজ্জাক মানবিক বিষয় বিবেচনা করে নন্দীগ্রাম পুরাতন বাজারের দোকান মালিকদের পুনর্বাসন করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। শর্তসাপেক্ষে দোকান মালিকদের অস্থায়ীভাবে দোকান ঘড় করার জন্য পজিশন বরাদ্দ করে। যা কখনো বিক্রয়-হস্তান্তর বা রকম পরিবর্তন করা যাবে না। এমন শর্তে দোকান মালিকরা দোকান ঘড় করার জন্য পজিশন নেয়। নন্দীগ্রাম পুরাতন বাজারের হোটেল মালিক আবুল কালাম সহ বেশ কিছু ব্যক্তি হোটেল ব্যবসা করার জন্য পজিশন পায় এবং তারা টিনশেট ঘড় স্থাপন করে হোটেল ব্যবসা সহ অন্যান্য ব্যাবসা শুরু করে। এমতাবস্থায় নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে কালাম তার ঘড় অন্যের নিকট মোটা অংকের টাকা নিয়ে বিক্রয় করে দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে। এই ঘড়টি ক্রয় করার পর পাকা করা হয়েছে। এই ঘড় ছাড়াও আরো বেশ কিছুু ঘড় সরকারি অনুমতি না নিয়েই আধা পাকা করে দোকান ঘড় নির্মান করে ব্যাবসা করে আসছে। বর্তমানে অন্যান্য ঘড় মালিক গনও তাদের ঘড় গুলি পাকা করার জন্য উদ্দ্যেগ গ্রহন করেছে বলে স্থানীয় কিছু ব্যক্তি জানিয়েছেন। এভাবে পাকা ঘড় তৈরী করা অব্যাহত থাকলে সরকারি জায়গা বেদখল হয়ে যাবে, এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা: শারমিন আখতারের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, সরকারি জায়গার উপর পাকা ঘড় নির্মান করলে তাদের বিরুদ্ধে আইন গত ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

পোস্টটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটেগরির আরও খবর