1. muktirshongbad@gmail.com : 20dailymuktirshongbadbd.com :
  2. mdkaiumjsc01643@gmail.com : Kaium Hossain :
  3. ramjanbhuiyan84@gmail.com : ramjanbhuiyan :
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৫:২৩ অপরাহ্ন
নোটিশঃ
বহুল জনপ্রিয় দৈনিক মুক্তির সংবাদ অনলাইন পত্রিকায় সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।  বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়,দৈনিক মুক্তির সংবাদ পত্রিকা সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়, জেলা ব্যুরো প্রধান ও বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানে কাজ আগ্রহী প্রার্থীগণ সিভি পাঠাতে পারেন। ন্যূনতম যোগ্যতা এস এস সি পাশ।চূড়ান্ত নির্বাচন প্রক্রিয়া:রিক্রুটিং টিম কোন প্রকার একাডেমিক পরীক্ষার ফল বিবেচনা করবে না। কর্মঠ, সৎ ও কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুগত প্রার্থীদের বাছাই করা হবে।E-mail :  muktirshongbad@gmail.com যোগাযোগ নাম্বার:01752602939/01710006400 ।সম্পাদক ও প্রকাশক,মোঃ মাসুদ মৃধাঃ 01933609066

বরগুনার এক কাপর ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে বালিশ বানালেন ওসি” আনতে গিয়ে পুলিশের সাথে খারাপ আচরণ ব‍্যবসায়ীর।

  • খবর পাবলিসের সময় বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৪৭ বার পোস্টটি পড়া হয়েছে


বরগুনা সংবাদদাতা:
বরগুনায় বালিশ বানানো কে কেন্দ্র করে সদর থানার ওসির বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালান একটি চক্র। জানা যায় গত বৃহস্পতিবার একটা বিছানার চাদরে ৩ গজ , ৪ টা বালিশের কভারে আধা গজ করে ২ গজ,মোট ৫ গজ কাপরের মজুরী সহ ১৫৮০ টাকা পরিষদ করে দোকানীর কাছ থেকে নিয়া যায়। আর একটি বালিশের কভার প্রয়োজন হলে টাকা দিয়া আধা গজ কাপড়ে একটা কভার বানানোর জন্য একজন পুলিশ সদস্যকে পাঠিয়েছিলেন ওসি। ঐ পুলিশ সদস‍্যকে গ্রামীন বস্ত্রালয়ের মালিক নজরুল উত্তেজিত হয়ে বলেন খুচরা-মচরা বিক্রি করি না, ওসি পাঠাইছে তাতে কি হইছে। এই বলে তিনি পুলিশকে নিয়ে খারাপ মন্তব্য করেন। ঘটনা শুনে ওসি নিজে বিষয়টি জানতে আসলে তার সাথেও খারাপ আচরন করেন ব‍্যবসায়ী নজরুল। এ বিষয় নিয়া কথার কাটাকাটি হয়। মঙ্গলবার দুপুরে বরগুনা শহরের
বঙ্গবন্ধু সড়কের কাপড় পট্টিতে এ ঘটনা ঘটে।
গ্রামীণ বস্ত্রালয়ের মালিক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার বরগুনা সদর থানার ওসি তারিকুল ইসলাম আমার দোকানে এসে একটি বিছানার চাদর ও চারটি বালিশের কভারের জন্য কাপড় কেনেন। পরে দোকনেরই দর্জি সেলিম খানের কাছে চাদর ও বালিশের কভার তৈরি করতে দিয়ে যান। রোববার একজন পুলিশ এসে বিছানার চাদর ও চারটি বালিশের কভার নিয়ে যান।
ঘটনার দিন বেলা ১১টার দিকে আবারও একজন পুলিশ দোকানে এসে আরেকটি বালিশের কভার তৈরির জন্য আধা গজ কাপড় দিতে বলেন। আধা গজ কাপড়ে একটি বালিশের কভার তৈরি করা যায় না। তাই আমি কাপড় বিক্রি করি নাই। বাহির থেকে কিনতে বলি।
কিছু না বলে ওই পুলিশ সদস্য দোকান থেকে চলে যান।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ওসি কেএম তারিকুল ইসলাম বলেন, আমি জানতে পেরেছি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়ে বিভিন্ন সময় খারাপ মন্তব্য করে আসছিলেন নজরুল নামের ঐ ব‍্যক্তি। এখন আমি নিজেই ভুক্তভোগী। তারপরেও কাপড়ের দোকানি পুলিশের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা করেছে শুনে আমি গিয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করলে দোকানদার নজরুল আমাকে খারাপ আচরণ করে, আমার সাথে থাকা পুলিশ সদস্যরা এগিয়ে আসলে তাদের সাথে গালাগালি করে তখন বিষয়টি আমি চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর কবিরকে জানালে তিনি আমাকে সুষ্ঠ সমাধানের আশ্বাস্ত করেন।

পোস্টটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটেগরির আরও খবর