1. muktirshongbad@gmail.com : 20dailymuktirshongbadbd.com :
  2. mdkaiumjsc01643@gmail.com : Kaium Hossain :
  3. ramjanbhuiyan84@gmail.com : ramjanbhuiyan :
মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০৬:৫৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
বহুল জনপ্রিয় দৈনিক মুক্তির সংবাদ অনলাইন পত্রিকায় সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।  বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়,দৈনিক মুক্তির সংবাদ পত্রিকা সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়, জেলা ব্যুরো প্রধান ও বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানে কাজ আগ্রহী প্রার্থীগণ সিভি পাঠাতে পারেন। ন্যূনতম যোগ্যতা এস এস সি পাশ।চূড়ান্ত নির্বাচন প্রক্রিয়া:রিক্রুটিং টিম কোন প্রকার একাডেমিক পরীক্ষার ফল বিবেচনা করবে না। কর্মঠ, সৎ ও কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুগত প্রার্থীদের বাছাই করা হবে।E-mail :  muktirshongbad@gmail.com যোগাযোগ নাম্বার:01752602939/01710006400 ।সম্পাদক ও প্রকাশক,মোঃ মাসুদ মৃধাঃ 01933609066

লালমনিরহাটে মাটি খুঁড়তেই বেড়িয়ে এলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বিমানের ধ্বংসাবশেষ

  • খবর পাবলিসের সময় শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৪০ বার পোস্টটি পড়া হয়েছে

মোঃ এজাজ আহম্মেদ,রংপুর ব্যুরো
রংপুর বিভাগ,রংপুর।

লালমনিরহাটে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে ব্যবহৃত একটি যুদ্ধ বিমানের মূল ইঞ্জিনসহ বিমানের বিভিন্ন ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করেছে স্থানীয় জনতা।

শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে লালমনিরহাট বিমানবন্দর রানওয়ে থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে একটি কৃষিজমির মাটির নিচ থেকে যুদ্ধবিমানের ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কৃত হয়।

পরে শনিবার (১৭ অক্টোবর) লালমনিরহাট জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে স্থানীয় পুলিশ ও বিমান বাহিনীর সদস্যরা উদ্ধার কার্যক্রম ও ওই এলাকা নিয়ন্ত্রণে নেয়।

শনিবার সকাল ৮টা থেকে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উদ্ধার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।যুদ্ধবিমানের ধ্বংসাবশেষ এবং উদ্ধার কার্যক্রম দেখতে লালমনিরহাট সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে শত শত উৎসুক জনতার ভিড় সামলাতে স্থানীয় পুলিশ ও বিমান বাহিনীর সদস্যদের বেগ পেতে হচ্ছে।

উদ্ধারকাজে অংশ নেওয়া বিমান বাহিনীর কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে,শনিবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত একটি যুদ্ধ বিমানের মূল ইঞ্জিন (প্রপেলার) ১টি, ২টি ল্যান্ডিং গিয়ার, ওয়েল বার্নিং এক্সজস্ট (সাইল্যান্সার), এমিউনেশন্স, ৫টি গান ও বিমানের টুকরো টুকরো কিছু যন্ত্রাংশ উদ্ধার করা হয়েছে।তবে উল্লিখিত যন্ত্রাংশের নাম নিশ্চিত হতে এবং কোন দেশের তৈরি বা কোন দেশের যুদ্ধবিমান ছিল এই মুহুর্তে কিছু বলতে পারেনি উপস্থিত বিমান বাহিনীর কর্মকর্তারা।

জমির মালিক রেজাউল করিম জানান,তার আবাদি উঁচু জমির উপরের মাটি কেটে নিচু করার জন্য কিছু মাটি কাটা শ্রমিক কাজ করছিল।গত শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরের পর সোহেল মিয়া নামে একজন শ্রমিক ৮-১০ কেজি ওজনের কিছু গুলি সদৃশ বস্তু প্রথমে দেখতে পান। এরপর আমাকে বিষয়টি অবহিত করলে থানায় খবর দেই। পরে পুলিশ এসে সেগুলো নিয়ে যায়। এরপর শনিবার সকালে বিমান বাহিনীর লোকজন, পুলিশ ও ডিসি অফিসের কর্মকর্তারা নিজেরা উপস্থিত থেকে স্থানীয় শ্রমিকদের মাধ্যমে মাটি খুঁড়ে পাঁচফুট মাটির নিচ থেকে যুদ্ধ বিমানের বেশ কিছু জিনিস উদ্ধার করেছে। এখনও কাজ চলছে।

লালমনিরহাট সদর থানার ওসি শাহা আলম বলেন, “কৃষক রেজাউল হকের জমির মাটি কেটে নিচু করার কাজ করছিলেন কিছু শ্রমিক। সোহেল মিয়া নামে এক শ্রমিক প্রথম কিছু গুলি দেখতে পান। এরপর ওই শ্রমিক জমির মালিককে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি থানায় বিষয়টি অবহিত করেন। থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) হাফিজুর রহমানকে ঘটনাস্থলে সরজমিনে পাঠানে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করলে আমরা রাতেই লালমনিরহাট বিমানবাহিনীকে বিষয়টি অবহিত করি। এরপর আজ শনিবার(১৭ অক্টোবর) সকাল থেকে লালমনিরহাট বিমান বাহিনীর রক্ষণাবেক্ষণ ও তত্তাবধান ইউনিটের একটি দল, পুলিশ, স্থানীয় লোকজনকে সাথে নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) টি এম রাহসিন কবির স্যারের উপস্থিতিতে বিমানের ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার কাজ শুরু করে। তবে এখন পর্যন্ত উদ্ধার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। শনিবারই উদ্ধার কার্যক্রম শেষ হতেও পারে আবার নাও হতে পারে।

জানতে চাইলে লালমনিরহাট বিমান বাহিনীর রক্ষণাবেক্ষণ ও তত্ত্বাবধায়ন ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত ইনচার্জ ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মাহমুদুল হাসান মাসুদ বলেন, “উদ্ধার কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আমরা বিমানের বেশকিছু অংশের জিনিসপত্র পেয়েছি। এসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে এই মুহুর্তে আমার পক্ষে কিছু বলা সম্ভব নয়।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, “পুলিশ ও বিমান বাহিনীর মাধ্যমে অবগত হয়েছি। শনিবার উদ্ধার কার্যক্রমে যেন কোনো প্রকার আইনগত বাধাবিপত্তি সৃষ্টি না সে জন্য নেজারত ডেপুটি কালেক্টর টি এম রাহসান কবিরকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছিলাম।”

তিনি আরও বলেন, “বিমানের ধ্বংসাবশেষ গুলো উদ্ধারের পর যদি জেলা প্রশাসনের নিকট হস্তান্তর করা হয়,তাহলে সেগুলো জেলা ট্রেজারিতে সংরক্ষণ করা হবে। আর যদি বিমান বাহিনী নিয়ে যায়, তারাও সেগুলো নিয়ে যেতে পারে। তবে উদ্ধার কার্যক্রম শেষ হওয়ার পর সার্বিক বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।

পোস্টটি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটেগরির আরও খবর